ঢাবিতে অবিন্তা কবির সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভের উদ্বোধন

ঢাবিতে অবিন্তা কবির সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভের উদ্বোধন

22

অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশনের পৃষ্ঠপোষকতায় ঢাকা বিশ্বাবিদ্যালয় চারুকলা অনুষদের গ্রন্থাগারে একটি অত্যাধুনিক সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভ স্থাপন করা হয়েছে।

আজ বুধবার অপরাহ্নে এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভ উদ্বোধন করেন।

অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন নিলু রওশন মোর্শেদ। এছাড়াও চারুকলা অনুষদের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অবিন্তা কবিরের পরিবারের সদস্যবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করেও বাংলাদেশের প্রতি গভীরভাবে অনুরক্ত অবিন্তা ছিল দেশ অন্তঃপ্রাণ। বিলাসবহুল জীবন যাপন করার পরও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য কিছু করার যে অভিপ্রায় সে পোষণ করতো এবং নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছিল সে তার দেশপ্রেমেরই প্রকাশ। আমাদের দুর্ভাগ্য আমরা অবিন্তা কবিরকে বাঁচিয়ে রাখতে পারিনি। আমাদের এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে যেন আর কাউকে এভাবে বিদায় নিতে না হয়। বিশ্বব্যাপী একের পর এক সন্ত্রাসী, সহিংস ও জঙ্গিবাদী ঘটনা ঘটে চলেছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূল করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই, এর জন্য দরকার সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস। উপাচার্য এই ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপে অবিন্তা ফাউন্ডেশনকে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান জানান এবং আশা প্রকাশ করেন অশুভ শক্তি নির্মূলে সকলে অংশগ্রহণ করবে।

মা রুবা আহমেদের একমাত্র সন্তান অবিন্তা কবিরের স্মৃতিচারণে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত সকলেই আবেগপ্রবণ হয়ে ওঠেন। অনুষ্ঠানে অবিন্তা কবিরের জীবন ও কর্ম নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্রের প্রদর্শন অনুষ্ঠানকে জীবন্ত করে তোলে। ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন নিলু রওশন মোর্শেদ বলেন, একজন মেধাবী শিক্ষার্থী ছাড়াও অবিন্তা কবির শিল্প ও নন্দনতত্ত্ব প্রেমী ছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী ও সদস্যদের কাজকে সহায়তা করার পাশাপাশি তাদের কাজের মাধ্যমে অবিন্তার স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতেই অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন এই উদ্যোগটি নিয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রী, শিল্প ও সংস্কৃতি অনুরাগী অবিন্তা কবির ২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিজানের নির্মম ঘটনায় নিহত হন। তার স্মৃতি রক্ষার্থে অবিন্তা কবিরের নামে এই সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভ স্থাপন করা হয়েছে।