আজও পুঁজিবাজারে কমেছে খুলনা পাওয়ারের দাম

অস্বাভাবিক উত্থানের পর টানা পতনে আবারও আগের অবস্থায় ফিরে গেছে খুলনা পাওয়ারের শেয়ারের দাম।

25

অস্বাভাবিক উত্থানের পর টানা পতনে আবারও আগের অবস্থায় ফিরে গেছে খুলনা পাওয়ারের শেয়ারের দাম। আজ সোমবার দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের দর গতকালের চেয়ে ১ টাকা ৮০ পয়সা কমে দাঁড়িয়েছে ৬৬ টাকা ২০ পয়সা।

গতকাল রোববার ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম কমে দাঁড়ায় ৬৮ টাকায়। এতেই এটির শেয়ারের দাম ফিরে গেছে গত আগস্টের দামে। ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, গত ২৮ আগস্ট ডিএসইতে খুলনা পাওয়ারের শেয়ারের দাম ছিল ৭০ টাকা। সেখান থেকেই একটানা উত্থান শুরু হয় কোম্পানিটির শেয়ারের দাম। এক মাসেরও কম সময়ে প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে ১৯ সেপ্টেম্বর খুলনা পাওয়ারের শেয়ারের দাম দাঁড়ায় ১৩৮ টাকায়। গত ১০ অক্টোবর এসে সেই দাম আরও খানিকটা বেড়ে প্রায় ১৪০ টাকায় ওঠে। এরপর একটানা দরপতন শুরু হয়। তাতে গতকাল দিন শেষে এ শেয়ারের দর অর্ধেকেরও বেশি কমে আগের অবস্থায় ফিরে আসে। অর্থাৎ যেখান থেকে উত্থান শুরু হয়েছিল, টানা পতনে সেখানেই আবার ফিরে এসেছে এটির দাম।

ঢাকার বাজারে গতকাল এক দিনেই খুলনা পাওয়ারের শেয়ারের দাম সাড়ে ১০ টাকা বা সাড়ে ১৩ শতাংশ কমেছে। মূলত রেকর্ড তারিখ পরবর্তী কার্যদিবসে শেয়ারের দামের সঙ্গে ঘোষিত বোনাস লভ্যাংশ সমন্বয়ের ফলে বড় ধরনের দরপতন ঘটে গতকাল। এ কারণে গতকাল ঢাকার বাজারে দরপতনের শীর্ষ পাঁচ কোম্পানির তালিকায় ছিল এটি। সর্বশেষ গত জুনে সমাপ্ত আর্থিক বছরের জন্য কোম্পানিটি ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করে। তার মধ্যে ১০ শতাংশ ছিল বোনাস লভ্যাংশ। বাকি ৩০ শতাংশ নগদ। গতকাল রেকর্ড তারিখ পরবর্তী কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ারের দামের সঙ্গে ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ সমন্বয় করা হয়। আজ কোম্পানিটির শেয়ারের দর কমেছে ২ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

আজ সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস প্রধান সূচক কিছুটা বেড়েছে ডিএসইতে। লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স বেড়েছে ৩ পয়েন্ট। মোট লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৬১৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। গতকালের চেয়ে প্রায় ৪৬ কোটি টাকা বেশি। গতকাল লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৫৬৯ কোটি টাকা। হাতবদল হওয়া শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১২৮টির, কমেছে ১৪০টির ও অপরিবর্তিত আছে ৬৪টির।